কানাইঘাটে সিল মারলেও ছাপ স্পষ্ট হচ্ছে না,১৫ মিনিট ভোট গ্রহণ বন্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদক : সিলেটের কানাইঘাট পৌরসভার দুই ভোটকেন্দ্রে ব্যালট পেপারে সিল দেওয়ার কালি নিয়ে সমস্যা দেখা দিয়েছে। ব্যালটের নির্দিষ্ট প্রতীকে ভোট দিলেও তা দেখা যাচ্ছে না বলে অভিযোগ ভেটারদের।

এ অভিযোগে পৌরসভার দুটি কেন্দ্রে প্রায় ১৫ মিনিট বন্ধ ছিলো ভোটগ্রহণ। এরপর কালি বদল করে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। রোববার (১৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল আটটা থেকে এ পৌরসভায় ভোট গ্রহণ শুরু হয়। প্রতিটি কেন্দ্রেই ব্যাপক সংখ্যক ভোটার উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে।

কানাইঘাট মনসুরিয়া দারুল উলুম মাদ্রাসা ও রায়গড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোটারদের অভিযোগ, ব্যালট পেপারে সিল দেওয়ার জন্য প্রদত্ত কালির মান খুব খারাপ। ব্যালটের নির্দিষ্ট প্রতীকে সিল দিলেও তা দেখা যাচ্ছে না। একারণে সকালে ক্ষোভ প্রকাশ করেন ভোটাররা।

ভোটারদের ক্ষোভের মুখে সকালে প্রায় ১৫ মিনিট বন্ধ ছিলো ভোটগ্রহণ। পরে নতুন কালি নিয়ে এসে ভোটগ্রহণ শুরু হয়।

রায়গড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের নৌকা প্রতীকের এজেন্ট আখতারুজ্জামান হিমেল ও ধানের শীষ প্রতীকের এজেন্ট মোহাম্মদ আলী জানান, কালির কারণে ১০ থেকে ১৫ মিনিট ভোটারদের ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে। সিল মারা সত্ত্বেও ব্যালট পেপারে কালির ছাপ অস্পষ্টভাবে বসেছিল। এরপর নতুন কালি আনলে ছাপ স্পষ্ট হয়। কালির এ সমস্যার কারণে শুরুতে ভোট গ্রহণে স্থবিরতা তৈরি হয়েছিল।

রায়গড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দিয়েছেন শামিম আহমদ। তার অভিযোগ, ভোট দিলেও ব্যালট পেপারে কালি স্পষ্টভাবে পড়েনি। সঠিকভাবে সিল মারলেও কালি অস্পষ্টভাবে বসেছে। কালি না পড়ায় ভোট বাতিল হয়ে যায় কি না, এ নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন তিনি।

কানাইঘাট মনসুরিয়া দারুল উলুম কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার ফকির আব্দুল আজিজ বলেন, ১৫ মিনিট কালির সংকট ছিলো। তবে তা তেমন কোনো প্রভাব ফেলেনি। পরে নতুন কালি সরবরাহ করা হয়।

রায়গড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবদুল মালিক জানান, এখানে মোট ভোটার ২ হাজার ১৩৯ জন। ৬টি বুথে ভোট গ্রহণ চলছে। তিনি বলেন, কালি নিয়ে ভোটারদের কিছুটা অভিযোগ ছিল। ভোট শুরুর ১৫ মিনিটের মধ্যে এ সমস্যার সমাধানও হয়ে যায়। এখন সুষ্ঠুভাবে ভোট চলছে।

কাইনঘাটে নির্বাচনে মেয়র পদে ৬ জন, কাউন্সিলর পদে ৩৯ জন ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৯ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ২০০৫ সালের ২৫ অক্টোবর কানাইঘাট পৌরসভা প্রতিষ্ঠিত হয়। পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে মোট ভোটার ১৯ হাজার ৪২৭ জন। তবে কালি-সংক্রান্ত অভিযোগ ছাড়া ভোটাররা নির্বাচনের পরিবেশ ও নিরপেক্ষতা নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

পৌরসভায় মেয়র পদে মোট ৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আওয়ামী লীগ মনোনীত লুৎফুর রহমান (নৌকা) ও বিএনপি মনোনীত মো. শরিফুল হক (ধানের শীষ)। স্বতন্ত্র হিসেবে আওয়ামী লীগের একজন ‘বিদ্রোহী’ আছেন। তিনি হলেন বর্তমান মেয়র ও উপজেলা আ.লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. নিজাম উদ্দিন (নারকেল গাছ)। রয়েছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত প্রার্থী নজির আহমদ (হাতপাখা)। এ ছাড়া স্বতন্ত্র হিসেবে নির্বাচন করছেন মো. সোহেল আমীন (জগ) ও কাওছার আহমেদ (মোবাইল ফোন)।