হবিগঞ্জে চেয়ারম্যান-মেম্বারের নেতৃত্বে সরকারি গাছ কর্তন

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার পাহাড়ি অঞ্চলখ্যাত দিনারপুরে চেয়ারম্যান-মেম্বারের নেতৃত্বে সরকারি গাছ কাটার মহোৎসব চলছে।

বুধবার (২৮ অক্টোবর) সকাল থেকে উপজেলার গজনাইপুর ইউনিয়নের জনতার-শতক সড়কের গ্রামীণ ব্যাংকের আশপাশ থেকে প্রায় ১০-১৫টি বিভিন্ন প্রজাতির গাছ কর্তন করা হয়। সরকারি গাছ কাটার অভিযোগের তীর উঠেছে স্থানীয় বরখাস্তকৃত চেয়ারম্যান ও এক ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে।

স্থানীয় সূত্র বলছে, দীর্ঘদিন ধরে ওই এলাকায় একটি মহল গাছ বিক্রি সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছেন। এসব কর্তনকৃত গাছ স্থানীয় স’মিলে মজুদ করে রাখেন এবং বিভিন্নস্থানে বিক্রি করে এই অসাধু চক্র। ফলে তারা রাতারাতি আঙ্গুল ফুলে কলা গাছে পরিণত হয়েছে। তারা জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয় প্রভাবশালী হওয়ায় প্রকাশ্যে প্রতিবাদ করতে ভয় পান এলাকাবাসী।

এদিকে গাছ কর্তনকালে নিয়োজিত ৮/১০ শ্রমিকরা জানান, গজনাইপুর ইউনিয়নের দুর্নীতির দায়ে বরখাস্তকৃত চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুল ও ইউপি সদস্য আব্দুল আলীর নির্দেশে গাছ কাটছেন তারা। ঘটনাটি জানাজানি হলে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিন তাৎক্ষণিক স্থানীয় ইউনিয়ন ভ‚মি অফিসের সহকারী ভ‚মি কর্মকর্তাকে ঘটনাস্থলে পাঠান। পরবর্তীতে বন বিভাগের কর্মকর্তারা ও নবীগঞ্জ থানার একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এ ঘটনার সত্যতা পান।

এ ব্যাপারে পানিউমদা ইউনিয়ন ভ‚মি অফিসের সহকারী ভূমি কর্মকর্তা মহসিন ভূইয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ঘটনাস্থলে গিয়ে গাছ কাটার সত্যতা পেয়েছি এবং গাছ কাটায় নিয়োজিত শ্রমিকরা জানিয়েছে স্থানীয় চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুল ও মেম্বার আব্দুল আলীর নির্দেশেই তারা গাছ কর্তন করেছে।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিন বলেন, ঘটনাটি জানার পরপর ঘটনাস্থলে লোক পাঠানো হয়েছে, এ ঘটনার সাথে যে বা যারাই জড়িত থাকুক তাদের প্রত্যেককেই আইনের আওতায় আনা হবে।

এ প্রসঙ্গে হবিগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য গাজী মোহাম্মদ শাহনওয়াজ মিলাদ এমপি বলেন- আমি দুর্নীতি করি না দুর্নীতিবাজদের আশ্রয় প্রশ্রয়ও দেই না, যে বা যারা দুর্নীতি করবে এবং গাছ কর্তন করে পরিবেশ নষ্ট করবে তার বিরুদ্ধেই কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।